• সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৫:৩১ অপরাহ্ন

কোটাবিরোধীদের পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা সন্ধ্যা ৭টায়

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : বুধবার, ১০ জুলাই, ২০২৪

মুক্তিযোদ্ধা কোটা ইস্যুতে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের ওপর আপিল বিভাগের স্থিতাবস্থা প্রত্যাখ্যান করে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। বৈষম্য বিরোধী ছাত্র আন্দোলনের সমন্বয়কারী হাসনাত বলেছেন, আমাদের দাবি মানতে হবে, এর কোন বিকল্প নেই। সন্ধ্যা ৭টায় পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা দেয়া হবে।

বুধবার (১০ জুলাই) সরকারি চাকরির প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের ওপর চার সপ্তাহের জন্য স্থিতাবস্থা দেন আপিল বিভাগ। একই সঙ্গে এ সময়ের মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষ ও শিক্ষার্থীদের হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল করতে বলেন আদালত। আগামী ৭ আগস্ট এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন।

তবে আদালতের এই আদেশে সন্তুষ্ট নন আন্দোলনকারীরা। আপিল বিভাগের সিদ্ধান্ত আসার পর রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয়া বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের নেতারা প্রতিক্রিয়া জানান।

আন্দোলনের সমন্বয়কারী হাসনাত বলেন, ‘কানাকে হাইকোর্ট দেখানোর রায় দেয়া হয়েছে! আমরা অসুস্থ হচ্ছি কিন্তু দমে যাইনি। কমিশন গঠন করে কোটা পদ্ধতি সংস্কার না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথ ছাড়বো না। সন্ধ্যা ৭টায় পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা দেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘কোনো রাজনৈতিক চশমা দিয়ে আমাদের দেখবেন না। আমাদের আন্দোলন দিনের আলোর মতো সত্য। কোনো আমলা-মামলা আমাদের ঠেকিয়ে রাখতে পারবে না। আমাদের দাবি মানতে হবে, এর কোন বিকল্প নেই।’

আদালতের আদেশের পর সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের নেতারা জানান, কমিশন গঠন করে কোটা পদ্ধতির সংস্কার ও স্থায়ী সমাধান হওয়ার আগে পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

তারা আরও বলেন, ‌‘হাইকোর্টের সিদ্ধান্তকে সম্মান করি। আমরা ২০২৪ সালে এসে শুধু প্রথম ও দ্বিতীয় নয়, সকল চাকরি থেকে কোটা তুলে নেয়ার এক দফা দাবি আমাদের। আমাদের দাবি হাইকোর্টের কাছে নয়, সংসদের কাছে। সংসদে আইন পাশ করে সকল চাকরি থেকে কোটা তুলে নিতে হবে। আইন অনুসারে ৫ শতাংশ কোটা রেখে সব তুলে নিতে হবে। আমরা স্থায়ী সমাধান চাই। স্থায়ী সমাধান না পাওয়া পর্যন্ত রাজপথ ছাড়ব না, আন্দোলন চালিয়ে যাব।’

এদিকে অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন বলেছেন, আদালতের রায়ের পর আন্দোলন করার আর কোনো যৌক্তিকতা নেই।

২০১৮ সালে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিল করে সরকার। পরে ২০২১ সালে কয়েকজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হাইকোর্টে এর বিরুদ্ধে রিট করেন। গত ৫ জুন হাইকোর্টের এক রায়ের মাধ্যমে আবারও ফিরে আসে কোটা ব্যবস্থা।

এরপর গত ১ জুলাই বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের ব্যানারে আন্দোলনে নামে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এর ধারাবাহিকতায় শনিবার রাজধানীর শাহবাগ থেকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। সে অনুযায়ী রোববার ও সোমবার টানা দুদিন বিকেলে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি পয়েন্টে অবস্থান ও অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন আন্দোলনকারীরা। এছাড়া দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও নিজ নিজ এলাকা থেকে এ কর্মসূচি পালন করেন।

মঙ্গলবার (৯ জুলাই) বিকেলে সাড়ে ৬টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের’ ব্যানারে সংবাদ সম্মেলন করে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের সমন্বয়ক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাহিদ ইসলাম বলেন, সারাদেশের সব মহাসড়ক ও রেলপথ এ ব্লকেডের আওতাভুক্ত থাকবে।

এর আগে ব্লকেড কর্মসূচিতে কয়েকঘণ্টা সড়ক অবরোধ করলেও বুধবার সকাল-সন্ধ্যা ব্লকেড কর্মসূচি দেন আন্দোলনকারীরা। এদিনই আবার কোটা বহাল করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের শুনানি হয়। শুনানির পর সরকারি চাকরিতে (৯ম থেকে ১৩তম গ্রেড) মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহাল করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ে চার সপ্তাহের জন্য স্থিতাবস্থা দেন আপিল বিভাগ। চার সপ্তাহ পর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :
এ জাতীয় আরও খবর