• বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৯:৫৯ পূর্বাহ্ন

মাঠে বিএনপি, রাজপথ ফাঁকা ছেড়ে দেবে না আওয়ামী লীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : মঙ্গলবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
আজ নয়াপল্টনে বিএনপি, সোহরাওয়ার্দীতে ছাত্রলীগের কর্মসূচি

আজ থেকে শুরু হয়েছে বর্তমান সরকারের পদত্যাগ, সংসদ বিলুপ্তি এবং নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের এক দফা দাবিতে বিএনপির টানা ১৫ দিনের কর্মসূচি। এ সময় পাল্টা কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকবে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত বিএনপিকে রাজপথ ফাঁকা ছেড়ে দেওয়া হবে না। শান্তি সমাবেশ, উন্নয়ন শোভাযাত্রা, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ কর্মসূচি পালন করবে।

জানা যায়, আজ কর্মসূচির শুরুর দিন মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ঢাকা জেলার জিনজিরা, কেরানীগঞ্জ এবং গাজীপুরের টঙ্গীতে সমাবেশ করবে বিএনপি। সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এটি সরকার পতনের এক দফার আন্দোলনের বিএনপির সপ্তম কর্মসূচি ঘোষণা।

এদিকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় গুরুত্বপূর্ণ একাধিক নেতার সাথে কথা বলে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বিদেশে অবস্থান করায় গতকাল সোমবার দলের কর্মসূচি চূড়ান্ত হয়নি। আজ মঙ্গলবার সকালে ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সঙ্গে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর এক সভা অনুষ্ঠিত হবে। এই সভায় বিএনপির কর্মসূচির বিপরীতে কর্মসূচি ঠিক করা হবে। এ ছাড়া বিএনপির কর্মসূচির ধরন বুঝে সতর্ক অবস্থানে থাকবেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

এদিকে বিএনপি আজকের কর্মসূচি ছাড়াও ২১ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার ভৈরব- ব্রাহ্মণবাড়িয়া-হবিগঞ্জ-মৌলভীবাজার-সিলেটে রোডমার্চ; ২২ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আশু রোগমুক্তি কামনায় বাদ জুমা সারাদেশের জেলা, মহানগর, উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে দোয়া অনুষ্ঠিত হবে। ২৩ সেপ্টেম্বর বরিশাল, ঝালকাঠি, পিরোজপুর ও পটুয়াখালীতে রোডমার্চ হবে। এদিন সহ মোট ১৫ দিনের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে দলটি।

আওয়ামী লীগের কর্মসূচি নিয়ে ক্ষমতাসীন দলটির কেন্দ্রীয় একাধিক নেতা জানান, যখন যেখানে যেমন কর্মসূচি প্রয়োজন তা গ্রহণ করা হবে। আগামী নির্বাচন পর্যন্ত বিরোধীদের আন্দোলন মোকাবেলা এবং সরকারের উন্নয়ন প্রচারের মধ্য দিয়ে নির্বাচনী প্রস্তুতি চলতে থাকবে। পর্যায়ক্রমে দেশের সব বিভাগীয় শহরে বড় ধরনের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এগুলোতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা উপস্থিত থাকবেন।


আপনার মতামত লিখুন :
এ জাতীয় আরও খবর