এই দিন

বৃহস্পতিবার   ০৪ জুন ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ২১ ১৪২৭   ১২ শাওয়াল ১৪৪১

Beta Version
সর্বশেষ:
ভবনে বহিরাগতদের প্রবেশ সীমিত করেছে ডিএনসিসি রোগীদের সেবা নিশ্চিত না হলে আন্দোলন : ছাত্রলীগ জুন থেকে গার্মেন্টস শ্রমিক ছাটাই শুরু হবে: রুবানা হক মানুষকে সুরক্ষিত করতে প্রাণপণে চেষ্টা করছি: প্রধানমন্ত্রী জামালপুর- ২ আসনের সংসদ সদস্য ফরিদুল হক করোনায় আক্রান্ত সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে শনাক্ত আড়াই হাজার, মৃত্যু ৩৫ জনের বাংলামোটরে বিহঙ্গ বাসের ধাক্কায় নিহত ২
৫১৬৪

বাড়ি ভাড়া মওকুফ করলেন এক মুক্তিযোদ্ধা

বিশেষ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৩০ মার্চ ২০২০  

দেশে উদ্ভূত করোনাভাইরাস পরিস্থিতি বিবেচনায় সব ভাড়াটিয়ার বাড়ি ভাড়া মওকুফ করলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. জাকির হোসেন। তিনি চলমান সংকটাপন্ন অবস্থার প্রেক্ষিতে মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সমাজসেবক ও মানবদরদী জাকির হোসেনের এমন উদ্যোগে সাধুবাদ জানিয়েছেন এলাকার সুধীমহল।

এ বিষয়ে জাকির হোসেন বলেন, সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে মানুষ অনেকটা গৃহবন্দী হয়ে পড়েছে। অনেকের উপার্জনও বন্ধ হওয়ার উপক্রম। কেউ কেউ বাসায় থেকে অনলাইনে অফিসের কাজ করছেন। তবে সে সংখ্যাও খুব বেশি নয়, হাতে গোণা। সবমিলিয়ে কেউই স্বস্তিজনক অবস্থানে নেই। এমতাবস্থায় আমার মনে হয়েছে, অসহায় মানুষগুলোর জন্য কিছু করা প্রয়োজন। তাই ক্ষুদ্র প্রয়াস হিসেবে সিদ্ধান্ত নিয়েছি চলতি মাসে (মার্চ) আমার ভাড়াটিয়াদের ভাড়া মওকুফের। কারণ আমার রাজধানীর আফতাবনগরের বাসার ভাড়াটিয়াদের অধিকাংশই নিম্ন মধ্যবিত্ত। তাই এই সংকটময় মুহুর্তে তাদের জন্য ভাড়া পরিশোধ করাটা একটা যুদ্ধের মতো। আমি চাইনা তারা এই যুদ্ধের সম্মুখীন হোক। তাই ভাড়া মওকুফের এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। 

তিনি আরো বলেন, আশারাখি আমার মত দেশের অন্যান্য বাড়িয়াওলারাও এই দুর্যোগের সময় ভাড়াটিয়াদের পাশে দাঁড়াবেন এবং চেষ্টা করবেন সর্বাত্মক সহযোগিতা করার। তারা ঠিকমত খাওয়া-দাওয়া করছে কিনা, কোন সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে কিনা-তার দেখভাল করবেন। 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৃতিসন্তান জাকির হোসেন একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে ২নং সেক্টরে মুক্তিযুদ্ধ করেন। নিজের জীবন বাজি রেখে লড়াই করেন দেশমাতৃকার জন্য। পরাশক্তিকে পরাজিত করে ছিনিয়ে আনেন কাঙ্খিত বিজয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেনের সুযোগ্য সন্তান দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে কর্মরত প্রতিষ্ঠান ফিফোটেক’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক তৌহিদ হোসেন এই প্রতিবেদককে বলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে বাবার জন্য আমার গর্ব হয়। কারণ তিনি সাহসিকতার সঙ্গে লড়াই করে দেশ স্বাধীন করেছেন। আরো গর্ব হয় যখন দেখি, এই বয়সেও তিনি মানুষের আপদে-বিপদে পাশে দাঁড়াচ্ছেন। যেমনটা তিনি চলতি করোনাভাইরাসের সময়ে করেছেন। নিজের পাওয়া মুক্তিযোদ্ধা ভাতার সবটুকু দিয়েছেন, সংকটময় মুহুর্তে থাকা অসহায় মানুষের জন্য। করেছেন ভাড়াটিয়াদের জন্য চলতি মাসের বাড়িভাড়া মওকুফও। অগ্নিঝরা স্বাধীনতার মাসে তিনি আরও একবার প্রমাণ করলেন, মুক্তিযোদ্ধারা এমনই মহান হন। স্যালুট আব্বুকে। স্যালুট দেশের সব মুক্তিযোদ্ধাদের।

   এই দিন
এই বিভাগের আরো খবর