এই দিন

মঙ্গলবার   ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০   আশ্বিন ১৪ ১৪২৭   ১১ সফর ১৪৪২

Beta Version
   এই দিন
সর্বশেষ:
যশোরে ইউসিবিএল ব্যাংকের সামনে দিনদুপুরে ব্যবসায়ীকে ছুরি মেরে ১৭ লাখ টাকা ছিনতাই দেশে করোনায় আরও ২৬ মৃত্যু, শনাক্ত ১৪৮৮ নকল মাস্ক সরবরাহের অভিযোগ জেএমআইয়ের চেয়ারম্যান গ্রেফতার এমসি কলেজে গণধর্ষণ: আরও তিন আসামির ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর দাবিতে সৌদি প্রবাসীদের বিক্ষোভ রিফাত হত্যায় মিন্নির ভূমিকা কী, উত্তর মিলবে কাল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা ও এইচএসসি নিয়ে সিদ্ধান্ত কাল
৮৫

পেঁয়াজ কাটলে চোখে পানি আসে কেন?

ফিচার ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০  

জীবনে পেঁয়াজ কাটার অভিজ্ঞতা যাদের আছে, সঙ্গে সঙ্গে এই মসলাটি কাটতে গিয়ে ‘কেঁদে ফেলার’ অভিজ্ঞতাও নিশ্চয়ই আছে। হ্যাঁ, পেঁয়াজ কাটতে গেলে আমাদের চোখ দিয়ে পানি চলে আসে। কিন্তু কেন? এই প্রশ্নের উত্তরই আমাদের সামনে তুলে ধরেছে খ্যাতনামা বিজ্ঞান সাময়িকী সায়েন্স অ্যালার্ট।

আমাদের শরীরে যেমন কোষ থাকে, পেঁয়াজেও তাই। ছোট ছোট কোষগুলোর প্রতিটিতে আবার পিচ্চি পিচ্চি কোটর থাকে। তাতে থাকে এনজাইম। এনজাইমের প্রভাবে রাসায়নিক বিক্রিয়া হয়। তো পেঁয়াজের এই এনজাইম এমনিতে বেশ উপকারী। গাছপালা হোক বা পশুপাখি, এনজাইম থাকবেই।

পেঁয়াজের আরেকটি রাসায়নিক যৌগ বা উপাদান হলো সালফোক্সাইড। পেঁয়াজ কাটলে কোষ উন্মুক্ত হয়ে পড়ে। ভেতরে থাকা এনজাইম বেরিয়ে সালফোক্সাইডের সঙ্গে বিক্রিয়া করে। তার ফলে উৎপন্ন হয় সালফেনিক অ্যাসিড। এই অ্যাসিড একাধারে বেশ কিছু বিক্রিয়া ঘটায়। সব শেষে তৈরি হয়ে সিন-প্রোপেনেথিয়াল এস-অক্সাইড। খটমটে নামের এই যৌগ বা উপাদানটি বাতাসের চেয়েও হালকা। তৈরি হওয়ামাত্র উড়ে যায়।

পেঁয়াজ কাটার সময় দেখবে আমাদের মাথা পেঁয়াজের ঠিক ওপরেই থাকে। ফলাফল? সিন-প্রোপেনেথিয়াল এস-অক্সাইড উড়ে গিয়ে ঠাঁই নেয় চোখে। চোখের পানির সঙ্গে আবারও বিক্রিয়া হয়। তৈরি হয় সালফিউরিক অ্যাসিড।

চোখে সালফিউরিক অ্যাসিড যে বিপজ্জনক, আমাদের মস্তিষ্ক কিন্তু ঠিকই তা বুঝতে পারে। তাই মস্তিষ্ক চোখের গ্রন্থিগুলোকে সঙ্গে সঙ্গে নির্দেশ দেয়, যত দ্রুত পারো ঝেঁটিয়ে বিদায় করো! আর তারপরই চোখ থেকে পানি বেরিয়ে ধুয়ে ফেলে সালফিউরিক অ্যাসিড। এই হলো রহস্য।

সাঁতারের চশমা পরে পেঁয়াজ কাটলে নাকি চোখে পানি আসে না। হেলমেটের বেলাতেও এ কথা কিছুটা প্রযোজ্য। মানে চোখে বাতাস না লাগলেই হলো। আবার কাটার আগে পেঁয়াজগুলো খানিকক্ষণ ফ্রিজে রেখে কিংবা পানিতে ভিজিয়ে রাখা যেতে পারে। অনেকে বলেন, এতে নাকি স্বাদের তারতম্য হয়। আরেকটি বিষয় হলো, ধারালো ছুরি দিয়ে পেঁয়াজ কাটলে চোখ কম জ্বালা করবে। কারণ, এতে পেঁয়াজের কোষ তুলনামূলক কম উন্মুক্ত হবে। তবে তুমি কখনোই একা একা পেঁয়াজ কাটতে যেয়ো না। এসব বুদ্ধি দেওয়া হলো বড়দের যেন বলতে পারো এ উদ্দেশে।

আসুন জেনে নিই- কীভাবে পেঁয়াজ কাটলে চোখে পানি ঝরবে না।

কাটার আগে ৩০ মিনিট ফ্রিজে রাখুন

পেঁয়াজ কাটার আগে ৩০ মিনিট রেফ্রিজারেটরে কিংবা ১০-১৫ মিনিট ফ্রিজারে রেখে দিন। ফলে ঠাণ্ডা তাপমাত্রায় পেঁয়াজে থাকা গ্যাস অর্থাৎ চোখের জন্য যন্ত্রণাদায়ক ঝাঁঝালো গ্যাস তৈরি প্রতিরোধ হবে। তবে পেঁয়াজ সব সময়ের জন্য রেফ্রিজারেটরে সংরক্ষণ করবেন না, এতে পেঁয়াজের স্বাদ নষ্ট হয়ে যাবে।

কাটার আগে পানিতে ভিজিয়ে রাখুন

কাটার আগে পানিতে ভিজিয়ে রাখা। তবে এতে পেঁয়াজের স্বাদের সঙ্গে কিছুটা আপোস করতে হবে। তবে পেঁয়াজের খোসা ছাড়িয়ে পানির পাত্রে ভিজিয়ে রাখুন। এতে পেঁয়াজের অ্যাসিড কমে যাওয়ায় কাটার সময় আর চোখের পানি ফেলতে হবে না

মাঝ বরাবর থেকে কাটুন

পেঁয়াজের মাথার অংশটিতে সবচেয়ে বেশি ঝাঁঝালো গ্যাস থাকে। এই অংশটি বাদ দিয়ে পেঁয়াজ কাটার পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে। প্রথমে পেঁয়াজ মাঝ বরাবর কেটে নিন। এরপর উভয় অংশ স্লাইস করে কাটুন, কেবল মূল অর্থাৎ মাথার অংশটি না কেটে ফেলে দিন।

বাতাস চলাচল

আপনার চোখের ওপর পেঁয়াজের গ্যাসের প্রভাব কমাতে আরেকটি উপায় হচ্ছে, বাতাস চলাচল করে এমন স্থানে যেমন জানালার পাশে অথবা পাখার নিচে পেঁয়াজ কাটুন। এতে বাতাসে পেঁয়াজের ঝাঁঝালো গ্যাস উড়ে যাওয়ায় চোখের সংস্পর্শে আসবে না।

ছুরি ব্যবহার

অন্যতম আরেকটি উপায় হচ্ছে, পেঁয়াজ কাটায় ধারালো ছুরি ব্যবহার করুন। ধারালো ছুরি পেঁয়াজের কোষ কম ভাঙবে। ফলে কম গ্যাস উৎপন্ন হবে। ঝাঁজ কমে যাবে চোখে পানি আসবে না।

   এই দিন
এই বিভাগের আরো খবর