এই দিন

শনিবার   ০৪ জুলাই ২০২০   আষাঢ় ২০ ১৪২৭   ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪১

Beta Version
সর্বশেষ:
১৪ জুলাই বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনে ভোট ভুডুড়ে বিদ্যুৎ বিল: ডিপিডিসির ৪ প্রকৌশলী বরখাস্ত, শোকজ ৩৬ বিমানের অধিকাংশ আন্তর্জাতিক ফ্লাইট স্থগিত করোনায় মৃত্যু শীর্ষে ঢাকা, সবচেয়ে কম ময়মনসিংহে ওয়ানডেতে শতাব্দীর দ্বিতীয় সেরা ক্রিকেটার সাকিব, ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর শুভেচ্ছা আবার করোনা পজিটিভ মাশরাফির গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় মৃত্যু ২৯, শনাক্ত ৩২৮৮ ঈদের আগেই সব শ্রমিকের বেতন-ভাতা পরিশোধের আহ্বান ওবায়দুল কাদেরের চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ১৪ দিনের জন্য লকডাউন ঘোষণা সাবেক মন্ত্রী টি এম গিয়াস উদ্দিন আর নেই
৫৫

করোনা আক্রান্ত হওয়ায় বাড়ি ছাড়তে হলো এসিল্যান্ডকে

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২১ জুন ২০২০  

করোনাভাইরাস সংক্রামণ প্রতিরোধে কাজ করতে গিয়ে নিজেই করোনা আক্রান্ত হয়ে ভাড়া বাড়িতে হোম আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন জামালপুর সদর উপজেলার (সহকারী কমিশনার, ভূমি) এসিল্যান্ড মাহমুদা বেগম। কিন্তু বাড়ির মালিক ও ফ্লাটের অন্য ভাড়াটিয়ারা সংক্রমণ শঙ্কায় তাকে বাড়ি ছাড়তে বাধ্য করেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শুক্রবার (১৯ জুন) তিনি বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে যান।

জানা যায়, ছোট একটি বিষয় নিয়ে বাড়ির মালিক আকলিমা খাতুনের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় মাহমুদা বেগমের। পরে একটি মিথ্যা অভিযোগ তুলে সংবাদ সন্মেলন করে মাহমুদাকে বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখে ফেলে বাসা ছাড়তে বাধ্য করেন  আকলিমা খাতুন।

সদর ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়, জামালপুর সদর ভূমি অফিসে এসিল্যান্ড হিসেবে মাহমুদা বেগম যোগদান করেন এ বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি। যোগদানের কিছুদিন পরেই দেশে করোনা সংক্রমণ শুরু হয়। ৮ মাস বয়সী কন্যা শিশু মাহনুর মাশিয়াত ফালাক্ক, চার বছর বয়সী জমজ সন্তান তাহমিদ তাজওয়ার ও মুশাররাত ই উলফাতকে ঘরে রেখে করোনার সংক্রামণ থেকে মানুষকে বাঁচাতে কাজ করেছেন তিনি। এ জেলায় প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর থেকেই সব সময় মাঠে থেকে অকুতোভয় যোদ্ধা হিসেবে লড়াই করে গেছেন তিনি।

মানুষের জন্য কজ করতে গিয়ে ২ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন মাহমুদা বেগম। সেদিন থেকে ১৫ মে পর্যন্ত হোম আইসোলেশন এবং ১৫ থেকে ২৯ মে পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টিনে থেকে শহরের দেওয়ানপাড়া ভাড়া বাসায় থেকে চিকিৎসা নেন তিনি। করোনা আক্রান্ত হয়ে ওই বাসায় হোম কোয়ারেন্টিনে থাকাটা ভালোভাবে নেননি বাড়ির মালিক আকলিমা খাতুনসহ ফ্ল্যাটের অন্য ভাড়াটিয়ারা।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা ভূমি অফিসের এসিল্যান্ড মাহমুদা বেগম বলেন, 'ভাড়া বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টিনে থেকে চিকিৎসা নেওয়াই ছিল আমার অপরাধ। এখন আমি বাসা ছেড়ে দিয়েছি এবং বকুলতলা এলাকায় একটি প্রাইভেট বাসাতে উঠেছি। এখন আপতত বকুলতলাতেই থাকবো।’

এ বিষয়ে জানতে বাড়ির মালিক আকলিমা খাতুনকে ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

   এই দিন
এই বিভাগের আরো খবর