এই দিন

বৃহস্পতিবার   ০৪ জুন ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ২১ ১৪২৭   ১২ শাওয়াল ১৪৪১

Beta Version
সর্বশেষ:
ভবনে বহিরাগতদের প্রবেশ সীমিত করেছে ডিএনসিসি রোগীদের সেবা নিশ্চিত না হলে আন্দোলন : ছাত্রলীগ জুন থেকে গার্মেন্টস শ্রমিক ছাটাই শুরু হবে: রুবানা হক মানুষকে সুরক্ষিত করতে প্রাণপণে চেষ্টা করছি: প্রধানমন্ত্রী জামালপুর- ২ আসনের সংসদ সদস্য ফরিদুল হক করোনায় আক্রান্ত সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে শনাক্ত আড়াই হাজার, মৃত্যু ৩৫ জনের বাংলামোটরে বিহঙ্গ বাসের ধাক্কায় নিহত ২
১২১

করোনায় নারীর পিরিয়ডকালীন সমস্যার সমাধানে ডিজিটাল সার্ভিস

প্রকাশিত: ২২ মে ২০২০  

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের প্রভাব শুধু খাদ্য বা কর্ম জীবনে নয় প্রতিটি ক্ষেত্রে পড়েছে। বাংলাদেশে স্যানিটারি ন্যাপকিন কেনা এখনও অনেকটা ট্যাবু। লকডাউনের বন্ধ ও অসচ্ছলতার কারণে অনেক কিশোরী ও মা এর জন্য স্যানিটারি ন্যাপকিন কেনা এখন দুঃসাধ্য হয়ে পরেছে। এই সমস্যার সমাধানে কাজ করছে ইয়ুথ হাবের ত্রিকোণমিতি প্রকল্প।

তরুণদের সংগঠন ইয়ুথ হাবের কো-ফাউন্ডার সুমাইয়া জাফরিন চৌধুরী বলেন- “স্যানিটারি ন্যাপকিনের অভাবে বিভিন্ন ধরনের ইনফেকশন, এমনকি ক্যান্সারে পর্যন্ত আক্রান্ত হন নারীরা। আমাদের দেশে এমনিতেই খুব কম নারী স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার করে। এই করোনা ভাইরাসের কারণে তো অনেকে এই অতীব জরুরি জিনিসটি ক্রয় করতে পারছে না, আর সামাজিক ট্যাবুর জন্য পরিবারের পুরুষ সদস্যদের বলতেও পারছে না। এ কারণে আমরা স্যানিটারি ন্যাপকিন সহ অন্যান্য নারীদের জরুরি আইটেম গুলো সচ্ছলদের বাজারমূল্যে কোন সার্ভিস চার্জ ছাড়াই বাসায় পৌঁছে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছি, পাশাপাশি অসচ্ছলদের বিনামূল্যে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি।”

পিরিয়ড নারীদের অতি স্বাভাবিক শরীরবৃত্তীয় প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া যা তাদের শারীরিক সুস্থতার সাথে ওতোপ্রতোভাবে জড়িত। কিন্তু আমাদের দেশে পিরিয়ড বা মাসিক ব্যাপারটা উপেক্ষিত। বিষয়টি এতোই গোপনীয়তায় রাখা হয় যে পরিবারের একজন নারীর মাসিক হলে অন্য নারী সদস্যারাও টের পান না। আর পুরুষরা তো না-ই। আমাদের দেশের অধিকাংশ নারীই তাদের পরিবারের পুরুষদের অতিপ্রয়োজনীয় এই জিনিস গুলো কিনতে বলতে সংকোচ করে থাকে। অনেকে বলতে না পারার কারণে অস্বাস্থ্যকর ভাবে পিরিয়ডের সময়টা অতিবাহিত করে। এজন্য বাংলাদেশের মাত্র ১৪% নারী স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার করেন। 

বিশেষ করে, করোনাভাইরাসের এই লকডাউনে অনেক নারীই স্যানিটারি ন্যাপকিন, হেয়ার রিমুভার, ওমেন রেজার ও প্রেগনেন্সি টেষ্ট স্ট্রিপ সঠিক সময়ে পাচ্ছেন না। এতে করে তাদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ছে। এমতাবস্থায়, ইয়ুথ হাব নিয়ে এসেছে “ ত্রিকোণমিতি” প্রজেক্ট। এই প্রজেক্টের উদ্যেশ্য হচ্ছে বাজার মূল্যে স্যানিটারি ন্যাপকিন, হেয়ার রিমুভার ক্রিম, ওমেন রেজার ও প্রেগনেন্সি টেষ্ট স্ট্রিপ নিজ নিজ বাসায় পৌঁছে দেয়া। পাশাপাশি যাদের কেনার সামর্থ্য নেই তাদের বিনামূল্যে প্রদান করা। 

ঘরে বসে স্যানিটারি ন্যাপকিন, হেয়ার রিমুভার ক্রিম, ওমেন রেজার ও প্রেগনেন্সি টেষ্ট স্ট্রিপ পেতে আপনাকে যেতে হবে trikonomiti.com ওয়েবসাইটে, আপনি চাইলে https://www.facebook.com/groups/trikonomiti/ এই ফেইসবুক গ্রুপে গিয়েও অর্ডার করতে পারবেন। 

অডার করার পর আপনাকে কল দিয়ে কনফার্ম করে অতিদ্রুত আপনার বাসায় পৌঁছে দিবে স্বেচ্ছাসেবকরা। এ ছাড়া শুধু মাত্র নারীদের জন্য এই ফেইসবুক গ্রুপটিতে নিয়মিত নারী সাস্থ্য সেবা নিয়ে বিভিন্ন পরামর্শ দিচ্ছেন বিশিষ্ট নারী চিকিৎসকরা। মালয়েশিয়া প্রবাসী তথ্য প্রযুক্তি উদ্যোক্তা ও এডুকেশন ক্যাম্পেইনার পাভেল সারওয়ার, উন্নয়নকর্মী ও উদ্যাক্তা সুমাইয়া জাফরিন চৌধুরী ও নেপালি তথ্য প্রযুক্তি উদ্যোক্তা নিরাজ ভুসাল মিলে গড়ে তুলেছেন ইয়ুথ হাব। 

ইয়ুথ হাবের সাথে এই প্রজেক্ট বাস্তবায়নে সহযোগী হিসেবে সাপোর্ট করছে ওয়ান ফ্রন্টিয়ার, ডোনেট ফর বাংলাদেশ, জাস ইন্টারন্যাশনাল ও টারটেল ভেঞ্চার। 

   এই দিন