এই দিন

মঙ্গলবার   ১১ আগস্ট ২০২০   শ্রাবণ ২৬ ১৪২৭   ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Beta Version
   এই দিন
সর্বশেষ:
লেবাননের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ সিনহা হত্যা মামলা: ৪ আসামির ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন শারীরিক উপস্থিতিতে শুরু হতে যাচ্ছে হাইকোর্টের বিচারকাজ বাংলাদেশে আটকে পড়া নাগরিকদের ফেরানোর নির্দেশ ভারত সরকারের কোতোয়ালির ওসিসহ পাঁচ পুলিশের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা করোনায় আজ আরও ৩৯ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৯০৭ এবার অর্থ আত্মসাতের মামলায় রিমান্ডে শাহেদ সংবাদ সম্মেলন করে কেঁদে কেঁদে সন্তান হত্যার বিচার চাইলেন সিনহার মা শিপ্রার পর সিনহার সহযোগী সিফাতেরও জামিন মিলল
৩১

ঋণ প্রবৃদ্ধি ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ ধরে মুদ্রানীতি ঘোষণা

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৯ জুলাই ২০২০  

ঋণ প্রবৃদ্ধি ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ ধরে চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। নতুন মুদ্রানীতিকে ‘সম্প্রসারণমূলক ও সংকুলানমুখী’ বলে আখ্যায়িত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে মুদ্রানীতির এই প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।

লিখিত বক্তব্যে গভর্নর ফজলে কবির বলেন, করোনাভাইরাসের মহামারিতে বিপর্যস্ত অর্থনীতি পুনরুদ্ধার ও সরকারের নির্ধারিত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে বেসরকারি খাতে ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ ঋণ প্রবৃদ্ধি পর্যাপ্ত হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। একইসঙ্গে সরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৪৪ দশমিক ৪ শতাংশ।

গভর্নর আরো বলেন, চলতি অর্থবছরের জন্য মুদ্রানীতির মূল লক্ষ্য হলো করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতিকে পুনরুদ্ধার করা এবং সরকারের নির্ধারিত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রাকে সামনে রেখে আর্থিক খাতের সার্বিক ব্যবস্থাপনা নির্ধারণ করা।

২০২০-২১ অর্থবছরে বৈদেশিক লেনদেন খাতের সম্ভাব্য গতিধারা বিবেচনা করে ব্যাপক মুদ্রা সরবরাহের অন্যতম উপাদান ব্যাংক ব্যবস্থার নিট বৈদেশিক সম্পদের প্রবৃদ্ধি নির্ধারণ করা হয়েছে ৫ দশমিক ৮ শতাংশ, যা গত অর্থবছরের (১০ দশমিক ২ শতাংশ) তুলনায় অনেক কম।

এ অর্থবছরে নিট বৈদেশিক সম্পদের প্রবৃদ্ধি তুলনামূলকভাবে কম হওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও সম্প্রসারণমূলক ও সংকুলানমুখী মুদ্রানীতি ভঙ্গির কারণে নিট অভ্যন্তরীণ সম্পদ বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। সে হিসেবে মোট অভ্যন্তরীণ ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৯ দশমিক ৩ শতাংশ। এর মধ্যে সরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে ৪৪ দশমিক ৪ শতাংশ এবং বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির প্রাক্কলন করা হয়েছে ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ। তবে গত অর্থবছরে এক লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও অর্জন হয়েছে মাত্র ৮ দশমিক ৬০ শতাংশ, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অনেক কম।

   এই দিন
এই বিভাগের আরো খবর